।। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি, ঢাকা ।।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের পর দেশের বিভিন্ন স্থানে তেলাপিয়া মাছ থেকে করোনা আক্রান্ত হবার ঝুঁকি আছে বলে গুজব ছড়ানো হচ্ছে। এ কারণে লোকসান গুনছেন দেশের বিভিন্ন স্থানের মাছ চাষিরা। কম দামে বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছেন বাজারে।

তবে সম্প্রতি এশিয়ান ফিশারিজ সোসাইটির এক গবেষণাপত্রে বলা হয়েছে, মাছ বা চিংড়ির মত জলজ প্রাণীর মাধ্যমে করোনাভাইরাস সংক্রমণ এবং এসব প্রাণীর মাধ্যমে মানুষের করোনা মহামারিতে কোনো ভূমিকা থাকার কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

বিশ্বের নামকরা জলজপ্রাণীর স্বাস্থ্য, মাছচাষ, খাদ্য নিরাপত্তা ও ভেটেরিনারি বিষয়ে একদল বিশেষজ্ঞ এ গবেষণাপত্রটি লিখেছেন।

যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড, সৌদি আরব, নরওয়ে, চীন, মালয়েশিয়া, থাইল্যান্ড, বসনিয়া ও হার্জেগোভেনিয়ার এসব বিশেষজ্ঞ জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষিবিষয়ক সংস্থা (এফএও) এবং বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিনিধি।

এদিকে, বাংলাদেশ সরকারের মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম এক ভিডিও বার্তায়, করোনা মোকাবেলায় শরীরের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে মাছ, মাংস, ডিম, দুধ ও এসব দিয়ে তৈরি খাবার খাওয়ার উপর গুরুত্বারোপ করেছেন। পাশাপাশি, এসব শিল্পের সাথে জড়িতদের সহায়তায় সরকার সব ধরণের সহায়তা দেবে বলেও ভিডিওবার্তায় জানানো হয়েছে।