।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে যারা গুরুতর অবস্থায় রয়েছেন, তাদের জন্য জরুরি প্রয়োজনে ‘রেমডেসিভির’ ওষুধ ব্যবহারের অনুমোদন দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের দ্য ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন। এর আগে দেশটির বিজ্ঞানীরা রেমডেসিভিরের কার্যকারিতার বিষয়ে হোয়াইট হাউসকে জানিয়েছিল। পরে রেমডেসিভির’ ওষুধটি নিয়ে পরীক্ষামূলক ব্যবহারে ইতিবাচক ফলও পেয়েছেন তারা।

শনিবার (২ মে) নিউইয়র্ক পোস্টের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, শুক্রবার (১ মে) প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও ওষুধ তৈরিকারী প্রতিষ্ঠান গিলিয়েড সায়েন্সের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ডেন ওডেকে সঙ্গে নিয়ে এই সিদ্ধান্তের ঘোষণা দেন।

চলতি বছরের ২৯ এপ্রিল হোয়াইট হাউসে করোনার সংক্রমণরোধে ‘রেমডেসিভিরের কার্যকারিতার ‘সুস্পষ্ট প্রমাণ’ পাওয়ার কথা জানিয়েছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব অ্যালার্জি অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজের পরিচালক এবং রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতা বিশেষজ্ঞ ডা. অ্যান্থনি ফাউচি।

ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের সূত্রে যুক্তরাষ্ট্রের এই স্বনামধন্য বিজ্ঞানী বলেছিলেন, করোনায় আক্রান্তদের মধ্যে রেমডেসিভির গ্রহণকারীরা অন্যদের তুলনায় কম সময়ের মধ্যে সুস্থ হয়ে ওঠবেন। ওষুধটি মৃত্যুহার কমাতে ভূমিকা রাখবে কিনা তা এখনো প্রমাণিত হয়নি।

‘রেমডেসিভির’ অনুমোদনকালে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প জানান, তিনি হোয়াইট হাউসের করোনা টাস্কফোর্সের দায়িত্বপ্রাপ্তদের সঙ্গে এটি ব্যবহারের বিষয়ে কথা বলেছিলেন। টাস্কফোর্সের সদস্য ডা. অ্যান্থনি ফাউসি ও দেবোরাহ ব্রিক্স ছাড়াও এফডিএর প্রধান স্টিফেন হান এটির অনুমোদনের সম্মতি দেন।

এদিকে করোনায় মৃত্যু আক্রান্তের দিক থেকে যুক্তরাষ্ট্র সবার শীর্ষে রয়েছে। জনস হপকিনস ইউনিভার্সিটির তথ্যমতে, এখন পর্যন্ত দেশটিতে প্রায় ১১ লাখ আক্রান্ত ও ৬৪ হাজারের বেশি প্রাণ হারিয়েছে।