।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

করোনা ভাইরাস এর বিস্তার রোধে সৌদি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় একটি জরুরি নির্দেশনা জারি করেছে।

নির্দেশনায় বলা হয়েছে স্বাস্থ্য, নিরাপত্তা, ইলেক্ট্রনিক সিকিউরিটি ডিপার্টমেন্ট ও ডিস্টেন্স লার্নিং ডিপার্টমেন্ট ছাড়া সব ধরনের সরকারি অফিস ১৬মার্চ সোমবার থেকে আগামী ১৬ দিনের জন্য বন্ধ থাকবে।

প্রাইভেট সেক্টর তাদের কর্মীদের কর্মস্থলে নিয়ে না গিয়ে অনলাইনে ঘরে বসে কাজ করানোর বিষয়ে জোর দেবে মর্মে নির্দেশনা দিয়েছে।

নির্দেশনায় যেসব বিদেশি কর্মী নিজ নিজ দেশ থেকে সদ্য সৌদি আরবে প্রবেশ করেছেন তাদেরকে বাধ্যতামূলকভাবে ১৪ দিনের হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে।

অন্যদিকে, সৌদি বিচার মন্ত্রণালয় জানিয়েছে যে, দেশের সব আদালতে সব ধরনের শুনানি কার্যক্রম ১৬ মার্চ থেকে পরবর্তী নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত বন্ধ থাকবে। স্থগিত হওয়া শুনানিগুলোর পরবর্তী তারিখ জানিয়ে দেওয়া হবে। তবে এসময় আদালতের অন্যান্য ইলেক্ট্রনিক সেবা চলমান থাকবে।

সৌদি কর্তৃপক্ষ সব শপিং মল, বাণিজ্যকেন্দ্র, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, হাররাজ, নিলাম প্রক্রিয়া, সেলুন, পার্লার, বিনোদন পার্ক, সমুদ্র সৈকত এবং বিনোদন কেন্দ্র বন্ধ করার নির্দেশনা দিয়েছে। নিষেধাজ্ঞার আওতায় যে কোন খোলা বা বদ্ধ স্থানে জমায়েতও নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

তবে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য সামগ্রী বিক্রয়ের সুপারশপ এবং ফার্মেসি ২৪ ঘন্টা খোলা থাকবে। সুপারশপ গুলো তাদের ট্রলি প্রতি কাস্টমারের ব্যবহারের পর সেনিটাইজিং করবে।

অপরদিকে, সৌদি কর্তৃপক্ষ সব ধরনের রেস্টুরেন্টে বসে খাবার খাওয়ার উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। খাবার পার্সেল করে ড্রাইভ থ্রো এর মাধ্যমে কিংবা খাদ্য সরবরাহকারীর মাধ্যমে নিয়ে যাওয়া যাবে।

ওদিকে, গতকাল সৌদি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নির্দেশনার প্রেক্ষিতে এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে যে, সব ধরনের ভিজিট ভিসার (ফ্যামিলি ভিজিট, বিজনেস ভিজিট, ট্রিটমেন্ট ভিজট, টুরিস্ট ভিসা, সিংগেল কিংবা মাল্টিপল) মেয়াদ বৃদ্ধি করা যাবে।

বর্তমান পরিস্থিতিতে আগতদের ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে গেলে কিংবা শেষ হওয়ার উপক্রম হলে অনলাইন সিস্টেম আবশির থেকে কিংবা জাওয়াযাতে গিয়ে ফি প্রদান করে ভিজিট ভিসার মেয়াদ পূর্বের মেয়াদের মত বাড়িয়ে নেওয়া যাবে।

সৌদি আরবে আরো নতুন করে ১৭ জনের আক্রান্ত হওয়ার খবর দিয়েছে সৌদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাড়াল ১০৩ জনে। আক্রান্ত সতের জনের মধ্যে ১২ জন রিয়াদে। নতুন কোন বাংলাদেশির আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া যায়নি।