।। বিডিনিউজ/রয়টার্স, বেইজিং ।।

চীনের হুবেই প্রদেশে নতুন করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা আট জনে নেমে এসেছে, দৈনিক রেকর্ড প্রকাশ শুরু হওয়ার পর থেকে এই প্রথম মহামারীর উৎসস্থলে নতুন আক্রান্তের সংখ্যা এক অঙ্কের ঘরে নেমে এলো।

নতুন আক্রান্তের সংখ্যা উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস পাওয়ায় স্থানীয় কর্তৃপক্ষ সতর্কভাবে কিছু কিছু বিধিনিষেধ শিথিল করা শুরু করেছে, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোও ফের খোলা শুরু করেছে বলে বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে।

হুবেই প্রদেশ কর্তৃপক্ষ বৃহস্পতিবার ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা আরও শিথিল করার ঘোষণা দিয়েছে এবং প্রদেশের দুটি শহর ও দুটি কাউন্টির কিছু শিল্পপ্রতিষ্ঠানকে উৎপাদন ফের শুরু করার অনুমতি দিয়েছে।

প্রাণঘাতী করোনভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ছড়িয়ে পড়ায় প্রাদেশিক রাজধানী উহানের বৃহদাকার গাড়ি নির্মাণ শিল্পসহ উৎপাদন ও বাণিজ্য নির্ভর হুবেইয়ের অর্থনীতির চাকা কার্যত বন্ধ হয়ে গিয়েছিল।

গত সাত দিনে ভাইরাসটি যখন বিশ্বব্যাপী দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে, তখন চীনে এর সংক্রমণ ধারাবাহিকভাবে হ্রাস পেয়েছে। এক কোটি ১০ লাখ বাসিন্দার শহর উহানের লোকজন ও যান চলাচলের ওপর কয়েক সপ্তাহ ধরে কঠোর নিয়ন্ত্রণ আরোপ ও শহরটি কার্যত অবরুদ্ধ করে রাখার কারণেই এ সাফল্য এসেছে বলে মত রয়টার্সের।

বৃহস্পতিবার চীনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন জানায়, বুধবার হুবেইয়ে নতুন আক্রান্তের সবগুলো ঘটনাই উহানে ঘটেছে।

হুবেইয়ের বাইরে চীনের মূলভূখণ্ডে নতুন করে আরও সাত জন ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়েছে। তাদের মধ্যে ছয় জনের বিদেশ থেকে দেশে ফেরার পর তাদের ভাইরাস সংক্রমণ ধরা পড়েছে।

যে ছয় জন দেশের বাইরে থেকে আক্রান্ত হয়ে ফিরেছেন তাদের তিন জন গুয়াংডং প্রদেশের, দুই জন গানসু প্রদেশের এবং একজন হেনান প্রদেশের।

এতে বুধবার চীনের মূলভূখণ্ডে নতুন আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াচ্ছে ১৫ জনে, আগের দিন মঙ্গলবার সংখ্যাটি ২৪ ছিল।

এদের নিয়ে চীনে নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্তের মোট সংখ্যা দাঁড়াচ্ছে ৮০ হাজার ৭৯৩ জনে। এদের মধ্যে মঙ্গলবার পর্যন্ত ৬২ হাজার ৭৯৩ জন সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছেন, যা মোট সংক্রমণের ৮০ শতাংশ প্রায়।

বুধবার ১১ জনের মৃত্যু হওয়ায় চীনের মূলভূখণ্ডে মৃতের সংখ্যা ৩ হাজার ১৬৯ জনে দাঁড়িয়েছে। এদের মধ্যে ১০ জনই হুবেই প্রদেশে মারা গেছে, এই ১০ জনের মধ্যে সাত জন মারা গেছে উহানে।

চীনের ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টির মুখপত্র পিপলস ডেইলির এক সম্পাদকীয়তে সতর্ক করে বলা হয়েছে, চীনে ভাইরাস সংক্রমণের নতুন ঘটনা কমতে থাকলেও এখনও কঠিন পরিস্থিতি বিরাজ করছে, তাতে প্রাদুর্ভাব ফের শুরু হওয়ার ঝুঁকি রয়ে গেছে।

ডিসেম্বরে চীন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) কাছে প্রথম আক্রান্তের কথা জানানোর পর থেকে বিশ্বের ১১৮ দেশ ও অঞ্চলের কর্তৃপক্ষ এক লাখ ১৮ হাজার ৩৮১ জনের আক্রান্ত হওয়ার তথ্য দিয়েছে। এই সময়ে এই নভেল করোনাভাইরাসজনিত রোগ কভিড-১৯ এ চীনসহ বিশ্বব্যাপী মৃত্যুর সংখ্যা ৪২৯২ জনে দাঁড়িয়েছে বলে ডব্লিউএইচও জানিয়েছে।