।। বাংলানিউজ, ঢাকা ।।

করোনা ভাইরাসের প্রভাব বাংলাদেশে চলমান চীনা প্রকল্পগুলোতে পড়বে বলে জানিয়েছেন ঢাকায় নিযুক্ত দেশটির রাষ্ট্রদূত লি জিমিং। আর রোহিঙ্গা সঙ্কট নিরসনে মিয়ানমারকেই উদ্যোগ নিতে হবে বলে মনে করেন তিনি।

তিনি বলেছেন, করোনা ভাইরাসের প্রভাব বাংলাদেশের চীনা প্রকল্পে পড়বে। কেননা অনেক চীনা নাগরিক দেশটির নববর্ষের  ছুটিতে দেশে গেছেন। তারা এখনই ফিরছেন না। সে কারণে এসব প্রকল্প  শেষ কতে একটু দেরি হতে পারে।

সোমবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে ডিপ্লোম্যাটিক করেসপন্ডেন্ট অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ ( ডিকাব) আয়োজিত ‘ডিকাব টক’ অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রদূত জিমিং এসব কথা বলেন।

ডিকাব টক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ঢাকায় চীনের রাষ্ট্রদূত লি জিমিং।  এতে আরো বক্তব্য রাখেন ডিকাব সভাপতি আঙ্গুর নাহার মন্টি ও সাধারণ সম্পাদক তৌহিদুর রহমান।

সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে লি জিমিং বলেন, চীনা প্রকল্পে প্রায় ৮ হাজার চীনা নাগরিক কাজ করছেন। আর বাংলাদেশে সব মিলিয়ে মোট ১০ হাজার চীনা নাগরিক রয়েছেন।

 অপর এক প্রশ্নের উত্তরে লি জিমিং বলেন, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে চীনের কোনো গাফিলতি নেই। সমস্যার শুরু থেকেই আমরা এটা  প্রতিরোধে কাজ করছি। যুক্তরাষ্ট্রে ফ্লু চিহ্নিত করতে ছয় মাস সময় লেগেছিলো, অথচ চীন ছয়দিনের মধ্যেই এই ভাইরাস চিহ্নিত করতে পেরেছে।

চীনা রাষ্ট্রদূত জানান, করোনা ভাইরাস নিয়ে বাংলাদেশ যেসব উদ্যোগ নিয়েছে সেটা খুবই ইতিবাচক। বাংলাদেশ আমাদের সঙ্গে আলোচনা করেই চীনা নাগরিকদের অন অ্যারাইভাল ভিসা সাময়িকভাবে বন্ধ করে দিয়েছে। এটা খুবই ইতিবাচক।

এছাড়া ভাইরাস প্রতিরোধে বাংলাদেশও চীনের পাশে রয়েছে বলে জানান তিনি।