।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

ইরানের ইসলামি বিপ্লবী গার্ড বাহিনী বা আইআরজিসি’র কুদস ফোর্সের কমান্ডার মে. জেনারেল কাসেম সোলেমানিকে হত্যার ‘প্রতিশোধ’ হিসেবে আমেরিকার সরকারি ওয়েবসাইটে সাইবার হামলা চালানো হয়েছে। ইরানের পক্ষ নিয়ে এ হামলা চালানো হয় বলে দাবি করেছে ইরান সাইবার সিকিউরিটি গ্রুপ হ্যাকারস।

স্থানীয় সময় শনিবার (০৪ জানুয়ারি) দিনগত রাতে ফেডারেল ডেপোজিটরি লাইব্রেরি প্রোগ্রামের (এফডিএলপি) ওয়েবসাইট হ্যাক করা হয়। এ তথ্য জানায় যুক্তরাজ্যের ডেইলি স্টার। এ ওয়েবসাইট হ্যাক করার পর সেখানে সতর্কবার্তায় লেখা হয়েছে, ইরানের সাইবার সক্ষমতার এটা সামান্য একটি নমুনা মাত্র।

সেখানে আরও লেখা হয়েছে, এটা ইসলামিক রিপাবলিক অব ইরানের পক্ষ থেকে বার্তা। আমরা এ অঞ্চলে আমাদের বন্ধুদের সহায়তা বন্ধ করবো না। ফিলিস্তিন এবং ইয়েমেনে নির্যাতিত জনগণের প্রতিও সহায়তা অব্যাহত থাকবে। সিরিয়ার সরকার এবং ইরকি জনগণের পাশাপাশি তাদের সরকারের প্রতিও থাকবে সমর্থন। বাহরাইনে নির্যাতিতদের পাশাপাশি লেবানন এবং ফিলিস্তিনের প্রতিরোধ সংগঠনগুলোর প্রতিও সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে। তারা সবসময় আমাদের সহায়তা পাবেন।

তাদের প্রস্তুতির কথা জানিয়ে ইরান সাইবার সিকিউরিটি গ্রুপ হ্যাকারসরা হুমকি দিয়ে বলে, আমরা সবসময় প্রস্তুত আছি। হামলা চলবে। ওয়েবসাইটটি হ্যাক করার পর সেখানে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিকৃত একটি ছবি ঝুলিয়ে দেওয়া হয়।

সাইবার হামলার পর থেকেই ফেডারেল ডেপোজিটরি লাইব্রেরি প্রোগ্রামের (এফডিএলপি) ওয়েবসাইটে ঢোকা যাচ্ছিল না। ওই প্রতিবেদনে জানানো হয়, যারা এ ওয়েবসাইট হ্যাক করেছেন তার যে ইরানেরই হ্যাকার তার কোনো সঠিক তথ্য পাওয়া যায়নি।

বাগদাদ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে মার্কিন হামলায় আইআরজিসির কুদস ফোর্সের কমান্ডার মে. জেনারেল কাসেম সোলেমানির নিহত হওয়ার পর শনিবার (০৪ জানুয়ারি) দিনগত রাতে ইরাকের বাগদাদে মার্কিন দূতাবাস ও সালাহউদ্দিন প্রদেশের মার্কিন বিমানঘাঁটিতে একযোগে ৫টি রকেট হামলা চালানো হয়েছে। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৫ জন আহত হয়েছেন।আর সোলেমানি নিহত হওয়ার ঘটনায় আসন্ন প্রতিশোধের ইঙ্গিত জানিয়ে পবিত্র মসজিদের চূড়ায় ‘যুদ্ধের লাল ঝাণ্ডা’ উড়িয়েছে ইরান।

এদিকে ইরানের ৫২টি গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনাকে লক্ষ্যবস্তু করে রাখার কথা জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন সম্পদের ওপর কোনো ধরনের আক্রমণ হলেই ওইসব লক্ষ্যবস্তুতে হামলা চালানোর আগাম হুমকি দিয়ে রেখেছেন যুক্তরাষ্ট্র প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।