।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

দেশের সীমান্তবর্তী জেলার সংখ্যা মোট ৩২টি। এর মধ্যে বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের সীমান্তবর্তী জেলা আছে ৩০টি। সব মিলিয়ে ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের সীমান্তের দৈর্ঘ্য দাঁড়ায় ৪ হাজার ১৫৬ কিলোমিটার। অন্যদিকে মিয়ানমারের সঙ্গে বাংলাদেশের সীমান্ত দৈর্ঘ্য দাঁড়ায় ২৭১ কিলোমিটার। পর্যায়ক্রমে বাংলাদেশের সব সীমান্ত ঘিরে উন্নতমানের সড়ক নির্মাণ করা হবে বলে জানিয়েছেন- পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। এরই মাঝে এর অংশ হিসেবে একনেকে প্রায় ৪ হাজার ৪৬০ কোটি ৫৪ লাখ টাকার ৭টি প্রকল্প অনুমোদিত হয়েছে বলে জানান তিনি।

মঙ্গলবার (৩১ ডিসেম্বর) প্রধানমন্ত্রী ও একনেক’র চেয়ারপারসন শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে শেরে বাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত একনেক-এর সভায় এসব প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়। সভাশেষে সাংবাদিকদের পরিকল্পনামন্ত্রী এসব তথ্য জানান।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ উন্নত হচ্ছে, তাই পর্যায়ক্রমে আমরা সব সীমান্ত সড়ক নির্মাণ করে ফেলবো। দেশের অর্থনীতি ও নিরাপত্তাসহ নানা খাতে অবদান রাখবে এসব সীমান্ত সড়ক।

মন্ত্রী আরও বলেন, আমরা আন্তঃজেলা সড়ক ফোর লেন করছি। গ্রামের সড়ক উন্নয়ন করছি। এখন সীমান্ত সড়ক নির্মাণ করবো।

এসব প্রকল্পের অন্যতম ময়মনসিংহ ও নেত্রকোণা জেলার অংশ (১ম সংশোধিত)। ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট ও ধোবাউড়া উপজেলা এবং নেত্রকোণার দুর্গাপুর ও কলমাকান্দা উপজেলায় এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে।। প্রকল্পটির মেয়াদ জানুয়ারি ২০১৬ থেকে ডিসেম্বর ২০২১ পর্যন্ত।

৫৫৯ কোটি ৫৬ লাখ ৬৭ হাজার টাকা ব্যয়ে বাস্তবায়িত হবে এ প্রকল্প। এটি বাস্তবায়িত হলে নেত্রকোণার দুর্গাপুর ও কলমাকান্দা উপজেলা এবং ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট ও ধোবাউড়া উপজেলার সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতির পাশাপাশি সীমান্ত এলাকার নিরাপত্তা নিশ্চিত করা সম্ভব হবে।

এছাড়া আন্তঃজেলা সীমান্ত সড়ক সহজ ও দ্রুত যোগাযোগ ব্যবস্থা এবং বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে বাণিজ্য সম্পর্ক বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখবে।