।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

পঞ্চাশ ও ষাটের দশকের স্টাইলিশ ব্যাটসম্যান বাসিল বুচার। অস্ট্রেলীয় কিংবদন্তি রিচি বেনো বলতেন, ক্যারিবীয়দের মধ্যে তাঁকে ড্রেসিংরুমে ফেরানোটা ছিল সবচেয়ে কষ্টসাধ্য কাজ। গায়ানার সেই কিংবদন্তি সোমবার সহজেই ফিরে গেলেন, তবে সেটি না ফেরার দেশে। দীর্ঘ রোগভোগের পর যুক্তরাষ্ট্রের  ফ্লোরিডায় মারা গেছেন তিনি। তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৬।

বুচার ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে ১৯৫৮ সাল থেকে ১৯৬৯ সাল পর্যন্ত ৪৪টি টেস্ট খেলেছেন। ৪৩.১১ গড়ে তাঁর রান ৩ হাজার ১০৪। মুগ্ধতা জাগানিয়া ব্যাটিং তাঁকে এনে দিয়েছিল ১৯৭০ সালে উইজডেনের বর্ষসেরা ক্রিকেটারের পুরস্কার।

টেস্টে তাঁর সাতটি সেঞ্চুরির মধ্যে লোকে বেশি মনে রেখেছে ১৯৬৩ সালের লর্ডস টেস্টের ১৩৩ রানের ইনিংসটিকে। লর্ডসে সেবার ইংল্যান্ড-উইন্ডিজ টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে তাঁর করা ১৩৩ রানের ইনিংসটিকে ধরা হয় এই মাঠের সর্বকালের অন্যতম সেরা। এই ইনিংসটি খেলার আগে দুঃসংবাদ শুনেই মাঠে নেমেছিলেন। স্ত্রীর গর্ভপাত হওয়ার খবরটি শুনে ক্রিজে মোটেও ভেঙে পড়েননি! বরং চোয়ালবদ্ধ প্রতিজ্ঞায় খেলেন অসাধারণ ওই ইনিংস।

এর তিন বছরের মাথায় টেস্ট ক্যারিয়ারে নিজের সর্বোচ্চ ইনিংসটি খেলেন বুচার। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে অপরাজিত ছিলেন ২০৯ রানে। ক্যারিবীয়দের ১৩৯ রানে টেস্ট জয়ের পেছনে এই ইনিংসেরই ছিল সবচেয়ে বড় ভূমিকা।