Loading...
উত্তরকাল > বিস্তারিত > রাতের সংবাদ > একমাস বন্ধের পর খুলেছে জাবি

একমাস বন্ধের পর খুলেছে জাবি

পড়তে পারবেন 2 মিনিটে

।। বাংলা ট্রিবিউন, ঢাকা ।।

দুর্নীতির অভিযোগে উপাচার্যকে অপসারণের আন্দোলনের জেরে এক মাস বন্ধ থাকার পর জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) আবাসিক হলগুলো খুলে দেয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৫ ডিসেম্বর) সকাল ১০টায় হল খুলে দেয়ার পর শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে ফিরতে শুরু করেছেন। আগামী রোববার (৮ ডিসেম্বর) থেকে শুরু হবে ক্লাস-পরীক্ষা।

বুধবার (৪ ডিসেম্বর) বিকালে অনুষ্ঠিত এক জরুরি সিন্ডিকেট সভায় বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

এদিকে হল খোলার প্রথম দিনেই উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের অপসারণ দাবিতে বিক্ষোভ করেছে ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’ মঞ্চের আন্দোলনকারীরা।

বৃহস্পতিবার দুপুর একটায় বিশ্ববিদ্যালয়ের মুরাদ চত্বর থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। মিছিলটি বিভিন্ন সড়ক ও প্রশাসনিক ভবন প্রদক্ষিণ করে বটতলায় গিয়ে শেষ হয়। পরে সেখানে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করেন মিছিলে অংশগ্রহণকারীরা।

সমাবেশে দর্শন বিভাগের অধ্যাপক আনোয়ারুল্লাহ ভূঁইয়া বলেন, ‘গত ৫ নভেম্বর উপাচার্যের মদতে ছাত্রলীগ আমাদের যৌক্তিক আন্দোলনে নির্মম হামলা চালিয়েছিল। এই উপাচার্যের দুর্নীতির খতিয়ান দীর্ঘ হচ্ছে। বর্তমান সরকার দুর্নীতির বিরুদ্ধে যে ‘জিরো টলারেন্স’ নীতি গ্রহণ করেছে জাবির ক্ষেত্রেও আমরা তা দেখতে চাই।’

জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোটের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মুশফিক উস সালেহীন বলেন, ‘প্রশাসন হল খুলে দেওয়া হয়েছে, যা শিক্ষার্থীদের একটি বিজয়। ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীদের লেলিয়ে দিয়ে উপাচার্য আমাদের হামলা চালিয়েছিল। আমাদের শান্তিপূর্ণ আন্দোলনে উসকানি দিলে জাহাঙ্গীরনগর আবার অস্থির হবে।’

সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট (মার্ক্সবাদী) জাবি শাখার সাধারণ সম্পাদক সুদীপ্ত দে’র সঞ্চালনায় সমাবেশে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের জাবি শাখার আহ্বায়ক শাকিল উজ জামান বলেন, ‘উপাচার্য তার গদি টিকিয়ে রাখতে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ রেখেছিল। তিনি শিক্ষার্থী, বিশ্ববিদ্যালয়ের ওপর নির্ভরশীল নিম্ন আয়ের মানুষের কথা চিন্তা করেননি। উপাচার্যের অপসারণ না হওয়া পর্যন্ত আমাদের শান্তিপূর্ণ আন্দোলন চলবে।’

গত ৫ নভেম্বরে উপাচার্যের বাসভবনের সামনে আন্দোলনকারীদের ওপর হামলায় জড়িত ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের শাস্তির জোর দাবি জানান বক্তারা।

এদিকে, আগামী ১০ ডিসেম্বর উপাচার্যের দুর্নীতির খতিয়ান প্রকাশ করা হবে বলে জানান ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’ মঞ্চের সমন্বয়ক ও মুখপাত্র অধ্যাপক রায়হান রাইন।

প্রসঙ্গত, দুর্নীতির অভিযোগে উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের অপসারণ দাবির ধারাবাহিক আন্দোলনের একপর্যায়ে গত ৪ নভেম্বর সন্ধ্যায় তার বাসভবন ঘেরাও করেন ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’ মঞ্চের আন্দোলনকারীরা। পরদিন ৫ নভেম্বর আন্দোলনরত শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা চালায় শাখা ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা। পরে সেদিনই এক জরুরি সিন্ডিকেট সভায় অনির্দিষ্টকালের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা এবং শিক্ষার্থীদের হল ছাড়ার নির্দেশ দেয়া হয়। বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধের মধ্যেই নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে উপাচার্যের অপসারণ, ছাত্রলীগের হামলার প্রতিবাদ ও বিশ্ববিদ্যালয় সচলের দাবিতে বিভিন্ন কর্মসূচি চালিয়ে আসছিলেন আন্দোলনকারীরা।

সবশেষ আপডেট

উত্তরকাল

বিশ্বকে জানুন বাংলায়

All original content on these pages is fingerprinted and certified by Digiprove
%d bloggers like this: