।। নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী ।।

দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে লাইন ভেঙে টিসিবির পেঁয়াজ কেনায় নিজেদের লোকেদের সহযোগিতার অভিযোগ উঠেছে। এমন অনিয়মে রোদে পুড়ে দীর্ঘ লাইনে দাঁড়ানো ক্রেতাদের দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে। সরেজমিনে ডিলার পয়েন্টগুলোতে ঘুরে এমন অনিয়মের প্রমাণ মিলেছে।

এদিকে পুলিশ সদস্যদের এমন অনিয়মে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন লাইনে দাঁড়ানো ভুক্তভোগী ক্রেতারা। বিক্রেতারা বলছেন ‘ওরা পুলিশের লোক’।

ভদ্রা পদ্মা আবাসিক এলাকার এক নম্বর রোডে মেসার্স সরদার এন্টার প্রাইজ টিসিবি’র পেঁয়াজ বিক্রি করছেন। এই ডিলার পয়েন্টে বুধবার দুপুর ১২টায় গিয়ে দেখা যায়, রোদে পুড়ে বিশাল লাইনে সারিবদ্ধভাবে ক্রেতারা পেঁয়াজ কিনছেন। তালাইমারি পুলিশ ফাঁড়ির দুইজন পুলিশ সদস্য সেখানে দায়িত্ব পালন করছেন। তাদের মধ্যে কন্সটেবল রশিদ তার পরিচিত মানুষদের লাইনের বাইরে থেকে পেঁয়াজ কিনতে সহযোগিতা করছেন। কিছুক্ষণ পর পর কন্সটেবল রশিদের কাছে দু-একজন করে এসে দেখা করছেন, রশিদ তাদের ইশারা করে ডিলারের ট্রাকের সাইডে দাঁড়াতে বলছে। পরে ডিলারের বিক্রয়কর্মীরা ক্রেতাদের লাইনের বাইরে থাকা ওই মানুষগুলোর হাতে পেঁয়াজ তুলে দিচ্ছেন।

লাইনে থাকা ক্রেতারা অভিযোগ করে জানান, পুলিশদের এখানে দেয়া হয়েছে যাতে অনিয়ম না হয়। অথচ রক্ষকরাই নিয়ম অমান্য করছে।

এবিষয়ে জানতে চাইলে বিক্রেতারা জানান, ওরা পুলিশের লোক।

অভিযুক্ত কন্সটেবলের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, আপনি কি এখানে আমাকে ধরতে এসেছেন। যারা লাইনের বাইরে পেঁয়াজ নিচ্ছে তারা পুলিশের লোক।

এদিকে একাধিক ডিলার নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, ক্রেতারা নিয়ম মেনে সারিবদ্ধভাবে পেঁয়াজ কিনছে। পেঁয়াজের জন্য প্রতিটি পয়েন্টেই ক্রেতাদের প্রচুর চাপ আছে। তবে ডিলার পয়েন্টগুলোর দায়িত্বে থাকা পুলিশের গুটিকয়েক সদস্য অনিয়ম করছে। তারা নিজেদের লোকদের লাইনের বাইরে পেঁয়াজ দিতে বাধ্য করছেন। বাধ্য হয়েই তাদের দু-একটি আবদার রাখতে হচ্ছে।

তালাইমারি ফাঁড়ির ইনচার্জ এস আই পাভেজকে বিষয়টি জানালে, তিনি তাৎখনিক ডিলার পয়েন্টে থাকা পুলিশ সদস্যদের সতর্ক করেন।

এদিকে ক্রেতাদের চাহিদার প্রেক্ষিতে ও নিত্যপণ্যের বাজার স্বাভাবিক রাখতে বুধবার থেকে খোলাবাজারে ডাল, চিনি ও তেল বিক্রি শুরু করেছে টিসিবি। এই বাজারে তেল ৮০ টাকা লিটার, ডাল ও চিনি কেজিপ্রতি বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকায়।