।। নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী ।।

রাজশাহী সিটি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্র ফারদিন ইসনা আষাড়িয়া রাব্বীকে (১৯) হত্যার কথা স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী দিয়েছেন গ্রেফতারকৃত আসামী রনক। শনিবার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক সেলিম রেজার আদালতে আসামী এ জবানবন্দী দেয়। এর আগে ৭ আগস্ট রনককে সন্দেহভাজন হিসেবে গ্রেপ্তার করা হয়।

নগর পুলিশের মুখপাত্র অতিরিক্ত সহকারী কমিশনার গোলাম রুহুল কুদ্দুস জানান, আসামী তার জবানবন্দিতে জানায়, সে বিভিন্ন নেশায় আসক্ত। ঘটনার দিন একাই ছিনতাই করার উদ্দেশ্যে গোল গলা গেঞ্জির ভিতরে দা লুকিয়ে রাখে। ঘটনার দিন ৬ আগস্ট ভোর অনুমান ৫টা ১৫ মিনিট থেকে সাড়ে ৫টা পর্যন্ত আসামী ঘটনাস্থলের পাশে আমরুর কনফেকশনারীর পাশে ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যে ওৎ পেতে থাকে।

আসামী রনক

ওই সময় কলেজছাত্র রাব্বী তিতুমীর ট্রেন ধরার উদ্দেশ্যে ঘাড়ে ও কাঁধে ব্যাগ নিয়ে পায়ে হেঁটে হেঁটে বর্ণালীর মোড়ের দিকে যেতে থাকে। তখন আসামী রনক ভিকটিম রাব্বীর পথরোধ করে দা বের করে ছিনতাইয়ের চেষ্টা করে। রাব্বী দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করে। দুইজনের মধ্যে ধস্তাধস্তি হয়। এক সময় ভিকটিম আসামীকে ফেলে দেয় এবং চিৎকার চেচামেচি শুরু করে।

ওই সময় আসামী রনক রেগে গিয়ে পিছন থেকে ভিকটিম রাব্বীর মাথায় দা দিয়ে কোপ মারে। রাব্বীর মাথায় গুরুতর রক্তাক্ত জখম হয়। রাব্বী মাটিতে পড়ে যায়। আসামী রনক অবস্থা বেগতিক দেখে, আশেপাশের লোকজন ও মসজিদের লোকজন দ্বারা ধরা পড়ার আশঙ্কায় টাকা, ম্যানিব্যাগ, মোবাইল, ব্যাগ না নিয়েই ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়।

রনক জানায়, সে রাব্বীকে আগে থেকে চিনতো না। ঘটনা ঘটার পর বিভিন্ন লোকজনের মাধ্যমে জানতে পারে রাব্বী সিটি কলেজের ছাত্র ছিলেন এবং মেসে বসবাস করতেন।

উল্লেখ্য, গত ৬ আগস্ট ফারদিন ইসনা আষাড়িয়া রাব্বী ঈদের ছুটিতে বাড়ি যাওয়ার জন্য বের হয়ে খুন হন। এ ঘটনায় পুলিশ স্থানীয় ছিনতাইকারী রনককে গ্রেফতার করে ৫ দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে। আসামীর দেওয়া তথ্য ও শনাক্ত অনুযায়ী তার বাড়ির শোবার ঘর থেকে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত একটি ধারালো দা আলামত হিসেবে উদ্ধার করা হয়। শনিবার আদালতে এ হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করে জনাবনবন্দী দেন রনক।