।। নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী ।।

বাপ-চাচাকে সঙ্গে নিয়ে নিজ খামারের জন্য গরু কিনতে রাজশাহীর হাটে এসেছিলেন জরিপ মৃধা (৩৫)। সঙ্গে ছিলো আড়াই লাখ টাকা। মনমতো গরু না পেয়ে ফিরে যাচ্ছিলেন নিজ গ্রাম নাটোরের সিংড়া উপজেলার মহিষপাড়া গ্রামে। তবে যাত্রা পথে মাত্র আড়াই লাখ টাকার জন্য বাপ-চাচার সামনেই খুন হতে হলো জরিপকে।

বুধবার দিবাগত রাতে সাড়ে ১২টায় রাজশাহী নগরের অদূরে কাটাখালি থানা এলাকার কুখন্ডি গ্রামের একটি রাস্তার ধার থেকে তার লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তাকে হাতুড় দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। তবে এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কাউকে চিহ্নিত করা যায়নি।

রাজশাহী নগর পুলিশের মুখপাত্র ও অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার গোলাম রুহুল কুদ্দুস বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, বুধবার সিংড়ার মহিষপাড়া গ্রাম থেকে বাবা আলম মৃধা (৬৫) ও চাচা রাশেদুল ইসলামকে নিয়ে রাজশাহী সিটি হাটে এসেছিলেন জরিপ মৃধা। জরিপ একজন গরুর খামারি। খামারের জন্ই গরু কিনতে এসেছিলো সে। তবে মনমতো গরু না পেয়ে তারা সন্ধ্যার দিকে নাটোরের নিজ গ্রামে ফিরে যাচ্ছিলেন। নওদাপাড়া বাস টার্মিনালে বাস না পেয়ে জন প্রতি ১০০ টাকা চুক্তিতে তারা তিনজন একটি ট্রাকে ওঠে।

কিছুদুর এগিয়ে যেতেই সেই ট্রাকে অপরিচিত আরো তিনজন যাত্রীবেশে ওঠেন। এর পর যাত্রীবেশে তিনজন জরিপদের কাছে থাকা টাকা কেড়ে নিতে চাইলে জরিপ বাধা দেয়। এ সময় তারা হাতুড় দিয়ে জরিপের মাথায় আঘাত করে ও টাকাগুলো ছিনিয়ে নেয়। এসময় তার সঙ্গে থাকা নিরস্ত্র বাবা-চাচার চেয়ে দেখা ছাড়া কিছুই ছিলো না। এর পর কিছুক্ষণ ট্রাক চালিয়ে নির্জন জায়গা দেখে তাদের নামিয়ে দেয়া হয়। সেইসঙ্গে বাবা-চাচাকে একটি গাছের সঙ্গে বেধে রাখা হয়। পরে টহল পুলিশ গিয়ে তাদের উদ্ধার করে।

পুলিশের এই মুখপাত্র আরো জানান, অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে জরিপের মৃত্যু হয়েছে। তার বাবা ও চাচা সুস্থ আছে। এ ঘটনায় জড়িত ট্রাকসহ সংশ্লিষ্টদের চিহ্নিত করে গ্রেফতার করতে পুলিশ কাজ করছে। সেইসঙ্গে থানায় একটি হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে।