।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।। 

ডেঙ্গু রোগীদের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিতে দেশের সরকারি হাসপাতালগুলোতে ৩৪০টি আইসিইউ বেড (নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রের বিছানা) এবং ৩৩৫টি ডায়ালাইসিস ইউনিট চালু আছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর। বেসরকারি হাসপাতালেও এসব সেবা দেওয়া হচ্ছে বলে অধিদফতরের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

বুধবার (৭ আগস্ট) ঢাকায় ক্রমবর্ধমান ডেঙ্গু জ্বরের প্রকোপ মোকাবিলার জন্য নিয়মিত আলোচনা সভায় এসব তথ্য জানানো হয়। অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় উপস্থিত ছিলেন রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার পরিচালক অধ্যাপক ডা. সানিয়া তহমিনা, হাসপাতাল সার্ভিস ম্যানেজমেন্টের লাইন ডিরেক্টর ডা. সত্যকাম চক্রবর্তী, জাতীয় ম্যালেরিয়া নির্মূল ও এডিস বাহিত রোগ নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির প্রোগ্রাম ম্যানেজার ডা. এম এম আক্তারুজ্জামান।

সভায় জানানো হয়, ডেঙ্গু রোগীদের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিতে মাঠ পর্যায়ে সার্বক্ষণিক মনিটরিং চালু থাকবে, ডেঙ্গু রোগীদের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিতের জন্য সরকারি হাসপাতালে ৩৪০টি আইসিইউ ও ৩৩৫টি ডায়ালাইসিস ইউনিট চালু আছে। বেসরকারি হাসপাতালেও এই সেবা দেয়া হচ্ছে। একইসঙ্গে দেশের সব বিমানবন্দর, স্থলবন্দর, নৌ ও সমুদ্রবন্দরগুলোতে ডেঙ্গু প্রতিরোধে বিশেষ সতর্কতা গ্রহণ করা হয়েছে।

অধিদফতরের পক্ষ থেকে আরও জানানো হয়, ঈদের দিনে কমিউনিটি ক্লিনিকের কমিউনিটি হেলথ কেয়ার প্রোভাইডাররা (সিএইচসিপি) অন-কলে ডিউটিতে থাকবেন। স্থানীয়দের যেকোনও সমস্যায় সিএইচসিপিদের দেয়া মোবাইল নম্বরে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে। অধিদফতর জানিয়েছে, বাংলাদেশ মেডিসিন সোসাইটির সহযোগিতায় ২৬ জেলার সিভিল সার্জনসহ আরএমও, মেডিসিন ও শিশু বিশেষজ্ঞদের ডেঙ্গু ম্যানেজমেন্ট গাইডলাইন নিয়ে ইতোমধ্যেই প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে।

চিকিৎসা সংশ্লিষ্ট সিদ্ধান্তের পাশাপাশি যারা ঈদের ছুটিতে গ্রামের বাড়ি যাবেন তাদের জন্যও পরামর্শ দিয়েছে অধিদফতর। সেখানে তারা বলেছেন, বাড়ি, অফিসসহ সব প্রতিষ্ঠানে বিশেষ করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সমূহের টয়লেটের হাই এবং লো কমোড ঢেকে দিয়ে যেতে হবে, রেফ্রিজারেটরের ট্রে-এর পানি ফেলে শুকিয়ে রেখে যেতে হবে, এয়ার কন্ডিশনারের পাইপের পানিসহ যে কোনও পানি পরিষ্কার করে রেখে যেতে হবে।

সেইসঙ্গে বালতি, বদনা, হাড়িপাতিল, ড্রাম, গামলা, ঘটি-বাটি ইত্যাদির পানি ফেলে পরিষ্কার করে উল্টিয়ে রেখে যেতে হবে, বারান্দা ও বাসার ছাদের ওপর রাখা ফুলের টবের ট্রের পানি ফেলে পরিষ্কার করে উল্টিয়ে রেখে যেতে হবে এবং পানির ট্যাংকের ঢাকনা বন্ধ করে রেখে যেতে হবে।