।। বিশেষ প্রতিনিধি, রাজশাহী ।।

সোনামসজিদ স্থলবন্দরের রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে তার বিনিময়ে ঘুষ লেনদেনের আসর বসেছিলো কাস্টমসের রাজস্ব কর্মকর্তার ভাড়া বাসায়। রাজশাহীর উপশহর এলাকার ওই বাসায় এমন সময় হানা দেয় গোয়েন্দা পুলিশ। ৭ জনকে বমাল পাকড়াও করা হয়। ঘটনা বুধবার দিবাগত রাতের।

আটককৃতরা হলেন, আবু সাইদ নয়ন, আহসানুল কবার মিঠু, মনিরুল ইসলম জুয়েল, বায়োজিদ হোসেন, আব্দুল মান্নান, আবুল হাসান রুবেল ও আব্দুল মালেক। তারা সবাই আমদানিকারক।

তাদের কাছ থেকে ঘুষের ৮ লাখ ৩০ হাজার টাকা, ৭ হাজার ডলার ও গুলিসহ একটি পিস্তল জব্দ করেছে পুলিশ।

গোয়েন্দা পুলিশ সূত্র জানায়, উপশহর এলাকার ১৭১ নম্বর বাসায় কাস্টমসের রাজস্ব কর্মকর্তা আইয়ুব আলী বসবাস করেন। সেখানে প্রতি রাতেই বন্দরের ফাঁকি দেয়া রাজস্ব ভাগাভাগি হয়- গোপন সূত্রে এমন তথ্য পেয়েই অভিযান পরিচালনা করা হয়।

সূত্র মতে, বুধবার আটক মনিরুল ইসলাম জুয়েল নামের এক ব্যবসায়ীর মালবাহী দুটি ভারতীয় ট্রাক দেশে প্রবেশ করে। ওই দুটি ট্রাক থেকে প্রায় ৮০ লাখ টাকা সরকারের রাজস্ব পাবার কথা। কিন্ত ফাঁকি দিয়ে মাত্র ২০ লাখ টাকা রাজস্ব দিয়ে তড়িঘড়ি করে তারা মালামাল বাংলাদেশের ট্রাকে তুলে নেয়। এই ফাঁকি থেকে প্রায় ২০ লাখ টাকা ভাগাভাগি হয় কাস্টমস কর্মকর্তাদের মাঝে।

বোয়ালিয়া থানার ওসি নিবারন চন্দ্র বর্মন জানান, অভিয়ানে জব্দ করা অস্ত্র, টাকা ও ডলার বোয়ালিয়া থানায় রাখা হয়েছে। আর আটককৃতদের গোয়েন্দা পুলিশ কার্যালয়ে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, আটক সবাই বন্দরের আমদানিকারক। পুলিশ অভিযান টের পেয়ে তারা টাকাসহ বাড়ি থেকে বের হয়ে যাবার আগ মূহূর্তে আটক হয়। ওই সময় সেখানে মদ পান হচ্ছিলো। অস্ত্রটি আব্দুল মালেকের লাইসেন্স করা দাবি করেছে। পুলিশ তদন্ত করে দেখছে।