।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

সরকারকে সমালোচনামুক্ত রাখতে নানা ধরনের মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে বিএনপির আরও অনেক নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

সোমবার (১৭ জুন) দুপুরে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ আশঙ্কা প্রকাশ করেন।

রিজভীর অভিযোগ, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর বিভিন্ন সংস্থা নিজেদের মর্জি ও প্রয়োজনে নানা মিথ্যা কাহিনি রচনা করে বিএনপির আরও অনেক নিবেদিতপ্রাণ নেতাকর্মীর নামে কলঙ্ক লেপনের চেষ্টা করছে। এ উদ্দেশ্যে নানা ধরনের মিথ্যা মামলায় তাদের জড়িয়ে গ্রেফতার করবে বলে আশঙ্কা তার।

রিজভী বলেন, জুলুমশাহীর হিংস্র আঁচড়ে জর্জর এখন বিরোধী মত, পথ ও দলের নেতাকর্মীরা।

তিনি বলেন, গত শনিবার বিএনপির নির্বাহী কমিটির নেতা হাসান মামুনকে বাসা থেকে র‌্যাব তুলে নিয়ে যায়। গতকাল তাকে পটুয়াখালীতে গ্রেফতার দেখানো হয়। তার বিরুদ্ধে প্রশ্ন ফাঁসের মিথ্যা অভিযোগ আনা হয়। আসলে সরকারের বিভিন্ন অনিয়মের প্রতিবাদ ও সমালোচনা করায় তাকে গ্রেফতার করা হয়।

রিজভী আরও বলেন, কাল রোববার স্বেচ্ছাসেবক দল ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক শফিউদ্দিন সেন্টুকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। আমি তাদের গ্রেফতারের ঘটনায় নিন্দা জানাচ্ছি এবং অবিলম্বে মুক্তির দাবি করছি।

মধ্যরাতের নির্বাচনের পরেও সরকারের ভেতর থেকে শঙ্কা দূর হচ্ছে না দাবি করে বিএনপির এই নেতা বলেন, বগুড়ায় আসন্ন নির্বাচনে প্রতিটি কেন্দ্রে ইভিএম ব্যবহার করা হবে। ভোটাররা এই ইভিএম প্রক্রিয়ার জটিলতায় বেশি ভোট দিতে সক্ষম হয় না। যেহেতু বগুড়াতে ধানের শীষের ভোট বেশি, তাই প্রতিটি কেন্দ্রেই পরিকল্পিতভাবে ইভিএমের মাধ্যমে ভোট গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকারের আজ্ঞাবাহী নির্বাচন কমিশন।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক এবিএম মোশাররফ, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সালাম আজাদ প্রমুখ।