।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

আমাদের ইতিহাসে সড়কে এমন স্বস্তি কখনো দৃশ্যমান হয়নি। এবার ঈদযাত্রা ইতিহাসের স্বস্তিদায়ক যাত্রা। মানুষ ঈদ শেষে কর্মসংস্থানেও একই স্বস্তি নিয়ে ঢাকায় ফিরতে পারবে বলে দাবি করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

মঙ্গলবার (৪ জুন) সকালে গাজীপুর, চন্দ্রা, কোনাবাড়ি ও ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে পরিদর্শনের সময় মন্ত্রী একথা বলেন। ঈদে ঘরমুখো মানুষের যাত্রায় স্বস্তি দিতে পথে পথে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দেন মন্ত্রী।

ঈদযাত্রায় স্বস্তির কারণ উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, এবার সড়কে কারো দুর্ভোগ হয়নি। ঈদযাত্রায় সড়ক নিয়ে কারো অভিযোগও পাইনি। ঢাকা-টাঙ্গাইল ও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে কিছু স্থাপনা নির্মাণের ফলেই সড়কে স্বস্তি এসেছে। বহুল প্রতীক্ষিত দ্বিতীয় মেঘনা ও দ্বিতীয় গোমতী সেতুর উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

‘জয়দেবপুর-চন্দ্রা-টাঙ্গাইল-এলেঙ্গা মহাসড়কে কোনাবাড়ি ও চন্দ্রা ফ্লাইওভার, কালিয়াকৈর, দেওহাটা, মির্জাপুর ও ঘারিন্দা আন্ডারপাস এবং কড্ডা-১ সেতু ও বাইমাইল সেতুর উদ্বোধনও করেন প্রধানমন্ত্রী। মূলত এসব কারণেই এবার ঈদে সড়কে স্থায়ী সমাধান এসেছে। সামনে সড়ক আরো নিরাপদ ও যানজটমুক্ত হবে।’

ঈদের সময় সড়কে চাঁদাবাজি হওয়ার কথা স্বীকার করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ঈদ এলেই সড়কে চাঁদাবাজি হয়। আমরা এসব চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছি। কোথায় কোথায় সড়কে চাঁদাবাজি হয় এমন তথ্য-প্রমাণ দিলে সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ওবায়দুল কাদের আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ত্রিদেশীয় সফরের বর্তমানে ফিনল্যান্ডে আছেন। পাঁচদিনের এক সরকারি সফরে সে দেশে অবস্থান করছেন তিনি। প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে দেশবাসীর প্রতি রইলো ঈদের শুভেচ্ছা।