।। নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী ।।

রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার দেওপাড়া ইউনিয়নের ৭ নং পালপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভোটকেন্দ্রে গত ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনী সহিংসতায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা ইসমাইলকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। এই হত্যা মামলার মোট ২২জন আসামির মধ্যে ৮ জন সোমবার সকালে রাজশাহীর অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতে জামিন আবেদনের জন্য আত্মসমর্পণ করে।

সোমবার উভয় পক্ষের শুনানি শেষে বিচারক এমদাদুল হক আসামিদের আবেদন নামঞ্জুর করে তাদের জেল হাজতে প্রেরণ করেছেন। নিহত ইসমাইল দেওয়াড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নির্বাচনী কমিটির আহ্বায়ক ছিলেন। এদিকে একই মামলায় আরো দুইজন আসামির দুই দিনের রিমান্ড আবেদন মঞ্জুর করেছে একই আদালত। ইসমাইল হত্যা মামলায় মোট ২২জন আসামির মধ্যে এই ৮ জন আসামি হাইকোট থেকে ১৪ দিনের আগাম জামিনে ছিলেন।

সোমবার শুনানির সময় বাদি পক্ষের আইনজীবী ছিলেন পিপি ইবরাহিম হোসেন, অ্যাডভোকেট এজাজুল হক মানু । আর আসামি পক্ষের আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট শামসুল হক ও জুয়েল। নিহতের স্ত্রী বিজলা বেগমের দেয়া তথ্য মতে, গত ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনী কেন্দ্রে ইসমাইলকে কুপিয়ে ফেলে চলে যায় বিএনপি-জামাত পক্ষের লোকেরা।

এর পর তাকে উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে পর দিন ৩১ ডিসেম্বর সকাল ৭টায় চিকিৎসকেরা তাকে মৃত ঘোষণা করে। রাজশাহী জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি মুস্তাক আহমেদ জানান, এ ঘটনার তদন্ত শেষে মোট ২২জনকে আসামি করে মামলা করা হয়।

মামলার পর এখন পর্যন্ত মোট ১৮ জনকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। চারজন আসামি পলাতক থাকায় তাদের গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। মামলাটির তদন্তের স্বার্থে এই আটজন আসামিকেও রিমান্ডের জন্য আবেদন করা হবে। পলাতকদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।