Berger Viracare

।। নিজম্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী ।।

রাজশাহীতে সরকারি উদ্যোগে খাদ্যশস্য সংগ্রহ শুরু হয়েছে। সোমবার (২০ মে) থেকে প্রতিটি উপজেলায় এই কার্যক্রম শুরু হয়। এবার জেলায় খাদ্যশস্য সংগ্রহের মোট লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১৬ হাজার ৩৮০ মেট্রিক টন। যার মধ্যে ধান ২ হাজার ১২ মে.ট., চাল ১১ হাজার ২৮১ মে. ট. ও গম সংগ্রহ করা হবে ৩ হাজার ৮৭ মে.ট.।

আর চলতি মৌসুমে কেজি প্রতি চাল ৩৬ টাকা, গম ২৮ ও ধানের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ২৬ টাকা। এদিকে সকাল থেকে রাজশাহী জেলার ৯টি উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা ও চেয়ারম্যানদের উপস্থিতিতে কৃষকদের কাছ থেকে ধান সংগ্রহের কার্যক্রম উদ্বোধন করা হয়।

সোমবার সকাল থেকে রাজশাহীর তানোর উপজেলায় চলতি বোরো মৌসুমে ধান-চাল-গম সংগ্রহ অভিযান শুরু হয়েছে। এদিক দুপুরে পৌর সদরের গোল্লাপাড়া খাদ্য গুদামে ধান, চাল, গম সংগ্রহ অভিযানের উদ্বোধন করা হয়। ধান, চাল, গম সংগ্রহ অভিযানের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান লুৎফর হায়দার রশিদ ময়না।

এসময় উপজেলাটির চেয়ারম্যান জানান, তানোর উপজেলায় চলতি মৌসুমে ১ হাজার ৯৬ মেট্রিক টন চাল, ৩৬৯ মেট্রিক টন ধান, ১৩৬ মেট্রিন টন গম ক্রয় করা হবে। কেজি প্রতি চাল ৩৬ টাকা, গম কেজি প্রতি ২৮ ও প্রতি কেজি ধানের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ২৬ টাকা।

এদিকে রাজশাহীর বাঘায় ন্যায্যমূলে কৃষকের কাছ থেকে ধান ক্রয় শুরু করা হয়েছে। এদিন দুপুরে উপজেলার বলিহার গ্রামের কয়েকজন কৃষকের বাড়ি গিয়ে এই ধান ক্রয় কর্মসূচির শুভ উদ্বোধন করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহিন রেজা। উপজেলাটিতে এবার ১৭ মে.ট. ধান সংগ্রহর লক্ষমাত্রা রয়েছে। আর সংগ্রহের প্রথম দিন বাঘা উপজেলায় মোট ৫ টন ধান সংগ্রহ করা হয়।

এদিকে রাজশাহী জেলায় ২ হাজার ১২ মে. টন ধান ক্রয়ের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে নিশ্চিত করেন নির্বাহী কর্মকর্তা শাহিন রেজা। তিনি বলেন, চারঘাট-বাঘা আম প্রধান অঞ্চল হওয়ায় এখানে ধান সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা কম। তবে কৃষকরা যাতে বঞ্চিত না হয় সে জন্য কৃষকদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে ধান সংগ্রহ করা হচ্ছে। বাকি সকল উপজেলায় এবার ব্যাপক পরিমাণ ধান ক্রয় করা হবে।