।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের করা একটি মামলায় কবি হেনরী স্বপনকে গ্রেফতার করেছে বরিশালের কোতয়ালি মডেল থানা পুলিশ। ইতিমধ্যে তাকে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন পুলিশ কর্মকর্তারা।

মঙ্গলবার (১৪ মে) দুপুরে কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, বরিশাল নগরের উদয়ন স্কুল সংলগ্ন ক্যাথলিক চার্চের ফাদার লরেন্স ল্যাকা ডালিয়ে গোমেজ বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেছেন। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ওই মামলায় ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানার বিষয় উল্লেখ রয়েছে।

এদিকে হেনরী স্বপনের সহকর্মীরা জানান, সাদা পোশাকধারীরা হেনরী স্বপনকে তার বাসা থেকে তুলে নিয়ে যায়, যা সকলের মাঝে আতঙ্কের সৃষ্টি করেছে। তাকে গ্রেফতার নিয়েও লুকোচুরি করেছে পুলিশ। নিজেদের হেফাজতে হেনরী স্বপনকে রাখার কথা বললেও থানায় গিয়ে দেখা মেলেনি তার। পরে আদালতে তাকে পাঠানো হলেও সেখানে থানা থেকে মামলার কাগজ পাঠানো হয়নি।

কবি হেনরী স্বপন গ্রেফতারের পরপরই এ ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন সাংস্কৃতিক অঙ্গনসহ সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা।

বরিশাল সাংস্কৃতিক সংগঠন সমন্বয় পরিষদের সভাপতি কাজল ঘোষ বলেন, হেনরী স্বপনকে এভাবে গ্রেফতারের ঘটনার আমরা তীব্র নিন্দা জানাই। এর আগে হেনরী স্বপনের বাসায় গিয়ে যে হুমকি দেয়া হয়েছে, সেটা ছিলো উদ্বেগের বিষয়। যারা এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে তাদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনার দাবি জানাচ্ছি। পাশাপাশি পুরো ঘটনার সঠিক তদন্তের দাবি জানাই।

বরিশাল সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক স্বপন খন্দকার বলেন, হেনরী স্বপনের বিরুদ্ধে মামলাটি পুরোপুরি হয়রানিমূলক। পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে অন্যায়ভাবে লুকোচুরি খেলেছে।

তিনি বলেন, প্রথিতযশা কবি হেনরী স্বপন যখন নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছিলেন, তাকে নানানভাবে হুমকি-ধামকি দেয়া হচ্ছিলো, তখন হেনরী স্বপন তো পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছিলেন। কিন্তু কোতোয়ালি থানা পুলিশ তখন তার লিখিত আবেদন নেয়নি। আমরা ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত, হেনরী স্বপনের নিরাপত্তা ও হয়রানিমূলক মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানাই।