Berger Viracare

।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।। 

বাংলাদেশে আঘাত হানতে এগিয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ফনি। বাংলাদেশ উপকূলে বুধবার (১ মে) বিকালে আঘাত হানতে পারে অতি প্রবল এই ঘূর্ণিঝড়। তবে ঝড়টি ভারতীয় উপকূল হয়ে আসতে পারে বলে জানিয়েছেন আবহাওয়াবিদরা। এতে ঝড়ের শক্তি কিছুটা কমতে পারে। তবে বাংলাদেশে আসার সময় সাগর হয়ে আসার কারণে সেটি আবার শক্তিশালী হয়ে উঠতে পারে। সাগর এখন বিক্ষুব্ধ রয়েছে। এ কারণে চার বন্দরে ৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। পাশাপাশি মাছ ধরা জেলেদের গভীর সাগরে যেতে নিষেধ করা হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদফতরের সিনিয়র আবহাওয়াবিদ আব্দুল মান্নান জানান, বিকালের পরে ঝড়টি ডানদিকে মুভ করবে। ডানদিক মানে ওডিসা, পশ্চিমবঙ্গ এবং বাংলাদেশের উপকূল দিকে অগ্রসর হবে। ভারতের উপকূল হয়ে, উপকূল ঘেষে তারপর বাংলাদেশের দিকে আসবে, সরাসরি বাংলাদেশে আসবে না।

তিনি বলেন, এখন ঝড়টির যে শক্তি আছে তার তুলনায় কিছুটা কম গতিতে আসবে। কারণ যেহেতু উপকূল হয়ে আসবে সেহেতু উপকূলে সংঘর্ষের কারণে কিছুটা শক্তি হারাবে। কিন্তু ডানপাশে যেহেতু ঝড়ের একটি অংশ সাগরে থাকবে সে কারণে একেবারে মরে যাবে না। সে হয়তো ঘূর্ণিঝড় আকারে বাংলাদেশের উপকূলে আসবে। এখন পর্যন্ত এটি অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় হিসেবে আছে। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৭৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘন্টায় ১৬০ কিলোমিটার যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ১৮০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে।

তিনি বলেন, আমরা সতর্ক অবস্থায় আছি। উপকূলের সাইক্লোন সেন্টারগুলো রেডি রাখতে বলা হয়েছে। ঝড়ের গতি বেশি হলে উপকূলবাসীকে সেন্টারের দিকে যেতে বলা হতে পারে।