Zee5 Contract Coming Soon

।। নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী ।।

ঈদের আগে হকার উচ্ছেদকে সমীচীন মনে করেন না ফজলে হোসেন বাদশা এমপি। রাজশাহীতে মে দিবসের এক শ্রমিক সমাবেশে নিজের এই দৃষ্টিভঙ্গির কথা জানান ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক।

সম্প্রতি রাজশাহী সিটি করপোরেশনের উদ্যোগে নগরীজুড়ে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ শেষ হয়েছে। এর অংশ হিসেবে হকার উচ্ছেদেও পদক্ষেপ নেয়া হয়। এমন সময় ১৪ দলীয় জোট থেকে নির্বাচিত স্থানীয় সংসদ সদস্য বাদশা সমাবেশে বলেন, “আমি যদি দায়িত্বে থাকতাম, তাহলে ঈদের আগে হকার উচ্ছেদ করতাম না।”

উচ্ছেদের ক্ষেত্রে পুণর্বাসন ও ক্ষতিপূরণের ওপর গুরুত্বারোপ করে সাবেক এই ছাত্র ও শ্রমিক নেতা বলেন, “আমি দায়িত্বে থাকলে ঈদের পরে হকারদের ডেকে তাদের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে এই কাজটি করতাম। বিশেষ করে ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তা দেয়ার বিষয়টি নির্ধারণ করে পুণর্বাসন কিংবা ক্ষতিপূরণের মাধ্যমে একটা সমাধানে আসতাম।”

ঈদের আগে প্রান্তিক ব্যবসায়ীদের জীবিকার বিষয়টি সংকটের মুখে ফেলা অনুচিত বলে উল্লেখ করে বাদশা বলেন, “সামনে রোজা আর ঈদ। তাদের দুপয়সা ইনকামের সময়। এখন এভাবে তাদের বিকল্প না দিয়ে উচ্ছেদ করা যায় না। কারণ রাষ্ট্রটা জনগণের। সংবিধান কাউকে সে অধিকার দেয় না।”

বুধবার মে দিবস উপলক্ষে নগরীর সাহেববাজার জিরোপয়েন্টে রাজশাহী জেলার জাতীয় শ্রমিক ফেডারেশনের উদ্যোগে আয়োজিত শ্রমিক সমাবেশ ও কাউন্সিল অধিবেশনে ফজলে হোসেন বাদশা প্রধান অতিথির হিসেবে কথা বলছিলেন।

তিনি বলেন, “যে উদ্দেশ্যে মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে লাখো শহিদের রক্তের বিনিময়ে দেশকে স্বাধীন করা হয়েছিল তা এখনো পুরোপুরি অর্জিত হয়নি। কারণ অর্থনৈতিক বৈষম্য দূর করা ছিলো মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম লক্ষ্য। সেই উদ্দেশ্যকে সফল করতে সকল শ্রমিককে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। এই ঐক্যের মধ্য দিয়েই দেশকে কাঙ্ক্ষিত উন্নয়নের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে।”

বাদশা বলেন, “আমরা স্বাধীনতার পক্ষের শক্তির সাথে জাতীয় ঐক্য গড়েছি। কারণ একটাই, আমাদের ঐক্যের মধ্য দিয়ে দেশে স্বাধীনতার চেতনা বাস্তবায়িত হবে। আর স্বাধীনতার চেতনা বাস্তবায়িত হলেই মৌলবাদের বিষবাষ্প থেকে দেশকে মুক্ত করা সম্ভব হবে। স্বাধীনতা বিরোধীরা এখন মৌলাবাদ ও জঙ্গিবাদের প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে দেশকে অশান্ত করে এই জাতিকে পিছিয়ে দিতে ষড়যন্ত্র করছে।

রাজশাহী জেলা শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি ফেরদৌস টুটুলের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, মহানগর ওয়াকার্স পর্টির সভাপতি লিয়াকত আলী লিকু, রাজশাহী জেলা ওয়াকার্স পার্টির সভাপতি রফিকুল ইসলাম পিয়ারুল। কাউন্সিলে আরো বক্তব্য দেন, মহানগর ওয়াকার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক দেবাশীষ প্রামানিক দেবু, ওয়াকার্স পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট এন্তাজুল হক বাবু, সাদরুল ইসলাম, জেলা শ্রমিক ফেডারেশনের সহ সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক প্রমুখ।

এর আগে সকালে সংগঠনটির উদ্যোগে মে দিবসের এক শোভাযাত্রা সাহেববাজার প্রদক্ষিণ করে।