।। নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ।।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) পাঁচ দিনব্যাপী বার্ষিক চারুকলা প্রদর্শনী-২০১৯ এর সমাপনী অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার সকাল সাড়ে ১১ টায় শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন একাডেমিক ভবনে এই প্রদর্শনীর সমাপনী অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন উপমহাদেশের প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হক।

হাসান আজিজুল হক বলেন, যতক্ষণ পর্যন্ত একজন গায়কের কন্ঠ থেকে গান না শোনা হয় ততক্ষণ পর্যন্ত আমরা কেউ তাকে গায়ক বলি না। কারণ গায়ক হতে হলে আগে মানুষকে গান শোনাতে হবে। মানুষকে এমন হতে হবে যে কেউ কারো কথা শুনলে যাতে ভাবে তার কথাকে নয় যেন তাকেই শুনছে।

তিনি আরো বলেন, বিদেশে যেসব সংগ্রহশালা আছে সেগুলোতে যেসকল সুনামধারি চিত্রকর্ম আছে সেগুলো যে খুব বড় চিত্রকর্ম তা নয়, কিন্তু তাও সুনাম অর্জন করেছে। কারণ সেসকল চিত্রকর্ম দেখলে মনে হয় কথা বলছে। সৃষ্টিকর্তা মানুষকে সৃষ্টি করতে গিয়ে ইচ্ছা করেই কিছু সীমাবদ্ধতা রাখেন যাতে তারা তা পরে সম্পূর্ণ করার চেষ্টা করেন। মানুষ ক্রিয়েটিভ, স্রষ্টা অনেক কিছু করেননি, ইচ্ছা করলেই তিনি করতে পারতেন কিন্তু তিনি তা মানুষের দ্বারা করিয়ে নেন।

সমাপনীতে চিত্রকলা, প্রাচ্যকলা ও ছাপচিত্র বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. সুশান্ত কুমার অধিকারীর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন চারুকলা অনুষদের অধিকর্তা অধ্যাপক ড. সিদ্ধার্থ শঙ্কর তালুকদার।

প্রসঙ্গত, গত ১১ এপ্রিল বার্ষিক চারুকলা প্রদর্শনীটি শুরু হয়। চিত্রকলা, প্রাচ্যকলা ও ছাপচিত্র বিভাগ কর্তৃক প্রদর্শনীর আয়োজনে অনুষ্ঠানে চিত্রকলা, প্রাচ্যকলা ও ছাপচিত্র বিভাগের শিক্ষার্থীদের চারুশিল্পে উৎসাহিত করতে শ্রেষ্ঠ ১৮ জন কৃতি শিক্ষার্থীকে পুরস্কৃত করা হয়। এছাড়াও শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন পুরস্কারপ্রাপ্ত এক শিক্ষার্থীকে ৫ হাজার একশ টাকাসহ শিল্পী বনিজুল হক স্মৃতি পুরস্কার ও শিল্পী আসাদুল ইসলাম আসাদ স্মৃতি পুরস্কার প্রাপ্ত দুই শিক্ষার্থীকে পাঁচ হাজার টাকা প্রদান করা হয়।