।। সংবাদদাতা, নাটোর ।।

নাটোরে পাওয়ার টিলারের সঙ্গে সংযুক্ত করে ধান-গম কাটার নতুন রিপার মেশিনের অভিষেক হয়েছে। রোববার (৩১ মার্চ) নাটোরের বিসিক শিল্পনগরীতে কৃষি যন্ত্রপাতি উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান নবতির উদ্ভাবিত এ রিপার মেশিনের আনুষ্ঠানিক গম কাটা প্রদর্শনীতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপপরিচালক রফিকুল ইসলাম।

শহরতলীর দত্তপাড়া এলাকাতে বারি-৩২ জাতের পৌনে দুই বিঘার গমের জমিতে পাওয়ার টিলারের সঙ্গে সংযুক্ত করে নতুন এ রিপার মেশিনে মাত্র ১৮ মিনিটে মাঠের গম কাটা শেষ হয়। প্রতি ঘন্টায় পাওয়ার টিলারের জ্বালানি হিসেবে মাত্র ৬০০ মিলি লিটার ডিজেল খরচ করে ছয় বিঘা জমির ধান বা গম কাটা সম্ভব। এ হিসেবে আট ঘন্টা বা এক কর্ম দিবসে একজন শ্রমিকের মজুরি ও পাঁচ লিটারেরও কম তেল ব্যবহার করে প্রায় ৫০ বিঘা জমির ফসল কাটা সম্ভব।

উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান নবতি ইন্ডাষ্ট্রিজ প্রাইভেট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নুরউন নবী সোনার জানান, ধান বা গম কাটার জন্য দেশে প্রচলিত কম্বাইন্ড হারভেস্টারের দাম ছয় লাখ টাকা এবং প্রচলিত রিপার মেশিনের দাম এক লাখ ৮০ হাজার টাকা। পক্ষান্তরে আমাদের এই নতুন রিপার মেশিনের দাম মাত্র ৬০ হাজার টাকা। কৃষক পর্যায়ে প্রায় কৃষকের পাওয়ার টিলার থাকায় পাওয়ার টিলারে সংযুক্ত করে রিপার মেশিন সহজেই ব্যবহার করা যায় এবং এটি ব্যাপকভাবে সময় ও অর্থ সাশ্রয়ী। দ্রুত এ মেশিনটি সারাদেশে বাজারজাততরণ করা হবে।

প্রদর্শনীতে উপস্থিত নলডাঙ্গা উপজেলা কৃষি অফিসার আমিরুল ইসলাম জানান, এক বিঘা জমির গম কাটতে চারজন মজুরের প্রয়োজন। জমিতে গম পরিপক্ক হয়ে গেলেও মজুরের অভাবে অনেক কৃষক বর্তমানে গম কাটতে পারছেন না। এক্ষেত্রে নতুন উদ্ভাবিত এ রিপার মেশিন কৃষকদের জন্যে আশার আলো হয়ে পারে।

কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপপরিচালক রফিকুল ইসলাম উত্তরকালকে বলেন, কৃষি যান্ত্রিকীকরণ এখন সময়ের দাবি। মজুর সংকটের প্রেক্ষাপটে নতুন এ রিপার মেশিন কৃষক পর্যায়ে সমাদৃত হয়ে উঠতে পারে। তবে জমিতে যাতায়াতের সুবিধার জন্য পাওয়ার টিলার ও রিপার মেশিনের আয়তন কমাতে পারলে তা আরো উপযোগী হবে।