।। নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী ।।

রাজশাহী সদর আসনের সংসদ সদস্য ও শিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা বলেছেন, রাজশাহীকে শিক্ষানগর হিসেবেই গড়ে তোলা হবে। এ জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যেতে চাই।

বৃহস্পতিবার সকালে রাজশাহীর শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান সরকারি কলেজে এ বছরের এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের বিদায় ও নতুন শিক্ষার্থীদের বরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, বিগত ১০ বছরে প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অবকাঠামোগত উন্নয়ন করা হয়েছে। শিক্ষানগরের স্বীকৃতি পেতে আরও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের দরকার হলে তার প্রতিষ্ঠা করা হবে।

বাদশা বলেন, কামারুজ্জামান কলেজে যখন সভাপতি হিসেবে এসেছিলাম, তখন ১৭ জন ছাত্র ছিল। এখন তো ২ হাজার ২০০ ছাত্র। আমি এখন কলেজের সভাপতি নেই। কলেজটিতে সরকারিকরণে আমি ভূমিকা রেখেছি। কিন্তু মূল ভূমিকা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার। আমি যখন তাকে বলি, কলেজটাকে সরকারি করে দিতে হবে তখন তিনি ২০ মিনিটের মধ্যে সরকারিকরণের অর্ডার আমার হাতে তুলে দিয়েছিলেন।

কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর আবদুল খালেক সরকারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক বাদশা আরও বলেন, কলেজটিকে সরকারি করে দিলেও আমি আমার দায়িত্ব ছাড়িনি। এই কলেজটার অনার্স এবং ডিগ্রিকে আরও সম্প্রসারণ করতে হবে। এ নিয়ে আমি জেলা প্রশাসকের সঙ্গে কথা বলেছি। এই কলেজের জন্য আলাদা আরেকটা ক্যাম্পাস করতে হবে। সেখানে খেলার মাঠ থাকবে। সেই প্রক্রিয়া আমরা শুরু করেছি।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন রাজশাহী জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী সরকার। তিনি বলেন, টিনের ঘরে কলেজটির যাত্রা শুরু হয়েছিল। আমাদের হাতে প্রতিষ্ঠিত এই কলেজ সরকারি হয়েছে। এটা গর্বের। শিক্ষকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, যারা কলেজটি প্রতিষ্ঠায় ভূমিকা রেখেছিলেন, তাদের স্মরণে রাখবেন। কারণ, তারা টাকা তুলে কলেজটি প্রতিষ্ঠা না করলে এখানে কলেজ হতো না।

এর আগে উপশহর মহিলা কলেজের বিদায় ও নবীনবরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা। সেখানে বিশেষ অতিথি ছিলেন রাজশাহী শিক্ষাবোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান প্রফেসর তানবিরুল আলম, কলেজ গভর্নিং বডির সদস্য শাহাব উদ্দিন আহমেদ, আবুল কালাম আজাদ এবং কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ জাহাঙ্গীর আলম। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কলেজ গভর্নিং বডির সভাপতি অ্যাডভোকেট মজিবুল হক বকু।

এছাড়া দুপুরে নগরীর খাদেমুল ইসলাম বালিকা বিদ্যালয় ও কলেজে বার্ষিক মেধা, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে যোগ দেন সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা। এ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন রাজশাহী শিক্ষাবোর্ডের সচিব প্রফেসর তরুণ কুমার সরকার ও জেলা শিক্ষা অফিসার নাসির উদ্দিন। সভাপতিত্ব করেন প্রতিষ্ঠানটির সভাপতি অ্যাডভোকেট আবদুল হাদী। এ সময় এর অধ্যক্ষ রণজিৎ কুমার সাহাসহ সকল শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।