শিক্ষানবীশ প্রতিবেদক, রাজশাহী

রাজশাহীর পদ্মার তীরের ঐতিহাসিক স্থাপনা বড়কুঠিকে হেরিটেজ হিসেবে ঘোষণা করে তা সংরক্ষণের দাবি নিয়ে আবারো দুই ডাচ নাগরিক রাসিক মেয়রের শরণাপন্ন হয়েছেন। মঙ্গলবার রাতে তারা এই অনুরোধ জানিয়ে মেয়রের বাসভবনে তার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন রাতে তার ফেসবুক পেজে ছবিসহ এই তথ্যটি জানান। সেখানে তিনি লিখেছেন, “বড়কুঠিকে হেরিটেজ ঘোষণা করে এই ঐতিহাসিক ৩০০ শত বছরের পুরনো ভবনটি রক্ষণাবেক্ষনের প্রস্তাব নিয়ে পুনরায় এসেছিলেন দুই ডাচ নাগরিক মি: ফ্লোরাস ও সিগফ্রিড।”

প্রসঙ্গত, প্রথম দফায় মেয়র থাকাকালে মেয়র লিটন বড়কুঠিকে ঐতিহ্য হিসেবে সংরক্ষণ ও জাদুঘর নির্মাণের পরিকল্পনা করেছিলেন। কিন্তু তার মেয়াদ শেষের কারণে তা আর আলোর মুখ দেখেনি।