।। শোবিজ প্রতিবেদন ।।

যে মেয়ে ঘোড়া চালাতে পারে, তাকেই বলা হয় তুরঙ্গমী। মেয়েটির জন্মের পর দাদু এই নামটিই রাখতে চেয়েছিলেন। কিন্তু সে নাম আর রাখা হয়নি। বড় হয়েও মেয়েটির মাথা থেকে নামটি যায়নি। তাইতো ২০১৪ সালে যখন সেই মেয়েটি নাচের দল তৈরি করলেন, তার নাম রেখে দিলেন তুরঙ্গমী। বাকিটা ইতিহাস। পূজা সেনগুপ্ত নামের সেই মেয়েটি এখন শুধু দেশে নয়, দেশের বাইরেও তার ভিন্নধারার কাজ দিয়ে পরিচিত। সেই সঙ্গে সুখ্যাতি তুরঙ্গমীর। গেলো ৩১ জানুয়ারি পূজার ‘তুরঙ্গমী’ প্রতিষ্ঠার ৫ বছর পেরিয়েছে।

গেলো বছর সংগঠনটি যখন চারবছর পেরিয়ে পাঁচে পা দেয়, তখন শুরু হয় তাদের নাচের স্কুলের যাত্রা। এবার পাঁচ বছর পূর্তিতে তুরঙ্গমী তাদের স্লোগান দিয়েছে প্রস্ফুটিত পাঁচ।

প্রতিষ্ঠার পাঁচ বছরে তুরঙ্গমী তাদের ফেসবুক পেজে প্রকাশ করেছে এই তথ্যচিত্র।

শুরু থেকেই ভিন্ন ধারার কাজ করার স্বপ্ন নিয়ে যাত্রা ‍শুরু করেন তুরঙ্গমীর আর্টিস্টিক ডিরেক্টর ও কোরিওগ্রাফার পূজা। দেশে সচরাচর যে নাচের দলগুলো কাজ করে, তাদের থেকে একটু বাইরে গিয়ে ভিন্ন আঙ্গিকে কাজ করতে চেয়েছিলেন তিনি। নাচে পেশাদারত্বের একটি মাত্রা আনার পরিকল্পনা ছিলো। গত ৫ বছর সেই লক্ষ্য থেকে তুরঙ্গমী একচুলও নড়েনি। বরং প্রতিনিয়ত এগিয়েছে পরিকল্পনার চূড়ান্ত বাস্তবায়নে। দেশের পাশাপাশি বিদেশেও নানা ড্যান্স ফেস্টিভালে অংশ নিয়েছে পূজা সেনগুপ্তের তুরঙ্গমী।