Loading...
উত্তরকাল > Content page > বিদেশ > হুয়াওয়ে চীনের হয়ে গুপ্তচরবৃত্তি করছে না, সাফ জানালেন সিইও

হুয়াওয়ে চীনের হয়ে গুপ্তচরবৃত্তি করছে না, সাফ জানালেন সিইও

পড়তে পারবেন 2 মিনিটে

ব্যবসায়িক নীতিতে সবসময় গ্রাহকদের স্বার্থ প্রাধান্য পাবে এবং একটি ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান হিসেবে আমাদেরকে ব্যবসায়িক নীতি মেনে চলতে হয়। 

রেন ঝেংফেই
বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন

হুয়াওয়ে চীনের হয়ে গুপ্তচরবৃত্তি করছে না বলে জানিয়েছেন বৃহত্তম প্রযুক্তি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ের প্রধান নির্বাহী রেন ঝেংফেই। এমনকি চীনা সরকার থেকে বিশেষ অনুরোধ এলেও হুয়াওয়ে কখনই তাদের গ্রাহকদের তথ্য প্রদান করবে না। মঙ্গলবার (১৫ জানুয়ারি) চীনের শেনজেনে হুয়াওয়ের প্রধান কার্যালয়ে আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমের সাথে আলাপকালে এক বিবৃতিতে তিনি এসব কথা বলেন। গত কয়েকদিন ধরে নিরাপত্তার অভিযোগে হুয়াওয়ের ওপর যে রাজনৈতিক চাপ তৈরি হয়েছে তার প্রেক্ষিতে রেন এই বিবৃতি দিয়েছেন।

হুয়াওয়ের নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে যুক্তরাষ্ট্রে চীন সরকার গুপ্তচরবৃত্তি চালাচ্ছে- যুক্তরাষ্ট্রের এমন ধারণাকে পুরোপুরি নাকচ করে দিয়েছেন  পিপলস লিবারেশন আর্মির সাবেক এই সৈনিক রেন ঝেংফাই। তিনি স্পষ্ট করে জানিয়েছেন, যুক্তরাষ্ট্রের এমন সন্দেহ সত্য নয়।

তিনি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমকে আরো জানান, বর্তমান সরকারের সাথে তার ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক থাকলেও গ্রাহকদের ক্ষতি হয় এমন কোনো কাজ তিনি করবেন না এবং সেটা তার নিজের পার্টি বললেও না।

রেন বলেন, ‘গ্রাহকদের সাইবার সিকিউরিটি এবং প্রাইভেসি সুরক্ষার ব্যাপারে সবসময় আমরা তাদের পাশে আছি। একটি দায়িত্বশীল প্রতিষ্ঠান হিসেবে আমরা কখনই কোনো জাতি অথবা ব্যক্তির ক্ষতি হয় এমন কিছু করব না।’

তিনি আরো বলেন, ‘চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তাদের আনুষ্ঠানিক ব্যাখ্যায় জানিয়েছে- চীনের কোন আইন  কোনো প্রতিষ্ঠানকেই গুপ্তচরবৃত্তিতে বাধ্য করে না। এছাড়াও হুয়াওয়ে কিংবা আমার কাছে কখনো চীনা সরকারের পক্ষ থেকে এমন অনুরোধ আসেনি।’

রেন এবং সরকারের মধ্যকার রাজনৈতিক সম্পর্ক কখনো গ্রাহকদের তথ্যকে তৃতীয় পক্ষের হাতে তুলে দিতে পারে কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘ব্যবসায়িক নীতিতে সবসময় গ্রাহকদের স্বার্থ প্রাধান্য পাবে এবং একটি ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান হিসেবে আমাদেরকে ব্যবসায়িক নীতি মেনে চলতে হয়। সুতরাং আমি সরকারের সাথে আমার সম্পর্ককে কোনো বড় বাধা হিসেবে দেখছি না। সেক্ষেত্রে আমি মনে করি আমার অবস্থান খুবই স্পষ্ট এবং আমরা এধরনের যেকোনো অনুরোধকে না বলবো।’  রেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশংসা করে বলেন, ‘ব্যক্তিগতভাবে আমি এখনও বিশ্বাস করি ট্রাম্প একজন অসাধারণ প্রেসিডেন্ট। কর নীতির প্রশ্নে তার অবস্থান অনেক শক্তিশালী ছিল। আমি মনে করি, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শিল্পোন্নয়নে তার এই অবস্থান অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।’  রেনকে তার মেয়ের কারাবাসের বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি জানান, কানাডা এবং যুক্তরাষ্ট্রের আইনব্যবস্থার ওপর তার পূর্ণ আস্থা আছে এবং তিনি বিশ্বাস করেন খুব শিগগিরই তিনি সুবিচার পাবেন। রেন আরো জানান, ২০১৯ সালে আন্তর্জাতিক বাজারে হুয়াওয়েকে অনেক বেশি চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হবে।
অনেক বছর ধরেই আমরা গবেষণা এবং উন্নয়ন কার্যক্রমে প্রচুর বিনিয়োগ করেছি। সেক্ষেত্রে
জেডটিইর ভাগ্যে যা ঘটেছে হুয়াওয়ের ক্ষেত্রে এমনটা ঘটবে না। সাইবার নিরাপত্তা খাতে
আগামি পাঁচ বছরে ২০০ কোটি ডলার বিনিয়োগ করেবে হুয়াওয়ে।

হুয়াওয়ে সম্পর্কে

হুয়াওয়ে বিশ্বের অন্যতম
তথ্যপ্রযুক্তি সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান। সমৃদ্ধ জীবন নিশ্চিতকরণ ও উদ্ভাবনী দক্ষতা
বৃদ্ধির মাধ্যমে একটি উন্নত ও সংযুক্ত পৃথিবী গড়ে তোলাই হুয়াওয়ের উদ্দেশ্য।
গ্রাহক-কেন্দ্রিক নতুনত্ব এবং উন্মুক্ত অংশীদারিত্বের দ্বারা পরিচালিত হয়ে
হুয়াওয়ে একটি পরিপূর্ণ আইসিটি সমাধান পোর্টফোলিও প্রতিষ্ঠা করেছে যা গ্রাহকদের
টেলিকম ও এন্টারপ্রাইজ নেটওয়ার্ক, ডিভাইস এবং ক্লাউড কম্পিউটিং-এর সুবিধাসমূহ প্রদান করে। প্রতিষ্ঠানটি
বিশ্বের ১৭০টির বেশি দেশ ও অঞ্চলে সেবা দিচ্ছে যা বিশ্বের এক তৃতীয়াংশ জনসংখ্যার
সমান। এক লাখ ৮০ হাজার কর্মী নিয়ে ভবিষ্যতের তথ্যপ্রযুক্তিভিত্তিক সমাজ তৈরির
লক্ষ্যে হুয়াওয়ে কাজ করে চলেছে। এই বিশাল সংখ্যক কর্মীরা বিশ্বব্যাপী টেলিকম
অপারেটর, উদ্যোক্তা ও গ্রাহকদের সর্বোচ্চ মূল্যায়ন
নিশ্চিত করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। 

সবশেষ আপডেট

উত্তরকাল

বিশ্বকে জানুন বাংলায়

Follow US

All original content on these pages is fingerprinted and certified by Digiprove
%d bloggers like this: