পড়তে পারবেন 2 মিনিটে Berger Weather Coat

নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজশাহী মহানগরীতে অপহরণ ও ছিনতাইকারী চক্রের ছয় সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার দুপুর আড়াইটার দিকে আরএমপির সভাকক্ষে প্রেস ব্রিফিং করে এ তথ্য জানান পুলিশ কমিশনার একেএম হাফিজ আক্তার। আসামিদের কাছ থেকে তিনটি মোবাইল ফোন ও টাকা উদ্ধার করা হয়েছে।

পুলিশের হাতে আটককৃতরা হলো, নাটোর জেলার বাঘাতিপাড়া থানার মিস্ত্রি পাড়া এলাকার আব্দুল মতিনের ছেলে রাজু আহমেদ (২৪)। সে নগরীর রায়পড়া বড়বনগ্রাম এলাকায় বসবাস করে। নগরীর শাহ মখদুম থানার উত্তর নওদাপাড়া এলাকার জার্জিস আলমের ছেলে জামিল হোসেন টুটুল, নগরীর বোয়ালিয়া থানার সপুর ছয়ঘাটি এলাকার আব্দুল কুদ্দুসের ছেলে বিজয় (২২) ও নগরীর মধ্যনওদাপাড়া এলাকার মৃত রমজান আলীর ছেলে রায়হান ইসলাম (২৩), নগরীর হাটনওদাপাড়া এলাকার নাদিম হোসেনের ছেলে উল্লাস হোসেন জুবেল ও শাহ মখদুম থানার বড়বনগ্রাম রায়পাড়া এলাকার মোজাম্মেল হকের ছেলে তানভির আহমেদ অনিক (১৯)।

জানা গেছে, এয়ারপোর্ট থানার চন্দ্রপুকুর এলাকার নাজিম উদ্দিনের ছেলে ফায়সাল আহমেদকে ১৪ জানুয়ারি দুপুর আনুমানিক আড়াইটার দিকে আসামিদের মধ্য থেকে উল্লাস হোসেন জুবেল তাকে বন্ধুর পরিচয় দিয়ে জরুরি কথা আছে বলে নগরীর নওদাপাড়াস্থ শফিক ইংলিশ প্যালেস প্রাইভেট সেন্টারের সামনে ডেকে নেয়। সেখানে বাদীর ছেলে আসা মাত্রই জুবেল ও তানভির ভিকটিমকে নওদাপড়া বালিকা বিদ্যালয়ের পিছনে গিয়াসের নির্মানাধীন ৩য় তলা ভবনের দ্বিতীয় তলা ভবনের আটক করে রাখে।

এরপর জুবেল ও তানভির এবং আরো ৪/৫ জন ভিকটিমকে লাঠি দিয়ে এলোপাথাড়ি মারধর শুরু করে। মেরে ফেলার ভয় দেখিয়ে তার বাবার কাছে ফোন করিয়ে ৫ হাজার টাকা দিতে চাপ দেয়। তার বাবা তাৎক্ষনিক বিকাশে তারা ৩ হাজার টাকা দেয়। এ সময় ভিকটিমের চিৎকারে স্থানীয় লোকজন ও শাহ মখদুম থানা পুলিশ সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে দু’জনকে আটক করে ও বাকিরা পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ আটক আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদ শেষে পালিয়ে যাওয়া ছিনতাইকারীদের ঠিকানা নিয়ে তাদের আটক করে। আরো জানানো হয়, গ্রেফতারকৃত আসামীরা রাজশাহী মহানগরীর চিহ্নিত অপহরণ ও ছিনতাই চক্রের সক্রিয় সদস্য।

সংঘবদ্ধ চক্রের মাধ্যমে তারা মোটরসাইকেল নিয়ে রিকশা, অটোরিকশায় থাকা যাত্রীদের কাছ থেকে ব্যাগ, মোবাইল ও স্বর্ণালংকার ছিনতাই ও লোকজনকে অপহরণ করতো বলে আসামিরা স্বীকার করেছে।

প্রেস ব্রিফিংয়ে আরো উপস্থিত ছিলেন, আরএমপির শাহ মখদুম ডিভিশনের উপ-পুলিশ কমিশনার হেমায়েত উল্লাহ, ডিসি তারিকুল ইসলাম, নগর পুলিশের মুখপাত্র অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার ইফতে খায়ের আলম, এসি হাফিজুল ইসলাম, এসি সদর হাবিবুর রহমান ও শাহ মখদুম থানার ওসি এস এম মাসুদ পারভেজ।